অনুগল্প

by

সকালের নাস্তাটা কেমন যেন লাগল। বিস্বাদ বিস্বাদ। আমি একটু মুখে দিয়েই বললামঃ থুঃ! এমনিতেই মেজাজ বিগড়ে আছে আজ বিশ বছর হল। সেই কবে একদিন সকালে সবাই আমাকে ফেলে চলে গেল। একা করে, একেবারে নিঃসঙ্গ করে দিয়ে। তখন অবশ্য আমার খারাপ লাগে নি। অদ্ভুত লেগেছিল। তারপর আমি আমার নতুন জীবনের সাথে মানিয়ে নিলাম। আমার মানিয়ে নেয়ার

by

এই এলাকায় আসার পর এদের সাথেই আমার প্রথম পরিচয় হয়। বাবা এবং মেয়ে। মেয়েটার বয়স তিন বা চার হবে। বাবা প্রায় আমার বয়েসী। পয়ত্রিশ থেকে চল্লিশ। খুব অভিজাত পরিবার। আলিসান বাড়ি। কি একটা পারিবারিক ঝামেলার কারণে বাড়ির গৃহকর্ত্রী অর্থাৎ মেয়েটির মা এবং লোকটির স্ত্রী বাড়ি ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। লোকটি আমাকে কখনো কারণটি বলে নি। আমিও

by

ইদ্রিস আলী ও ভিনদেশী পাখি

  ইদ্রিস আলীর সেদিন অফিস থেকে ফেরার সময় মনে হল অনেকদিন কোথাও ঘুরতে যাওয়া হয় না। জীবনটা কেমন যেন একঘেয়ে হয়ে যাচ্ছে। ঘোরাঘোরি দরকার। ঘড়িতে তাকিয়ে দেখলেন চারটা বাজে। প্রচুর সময় আছে। একটা সিএনজি নিয়ে তিনি চলে গেলেন শহরের একটু বাইরে মাথা উচু করে দাঁড়িয়ে থাকা পাহাড়গুলোর কাছে। তার পাহাড় দেখতে ভালো লাগে। পাহাড়ের মধ্যে

by

    একদা বুদ্ধ বসিয়া আছেন। তাহার মাথার উপরে শরতের মেঘমুক্ত নীল আকাশ। বুদ্ধ সে উজ্জ্বল নীল আসমানের নীচে বসিয়া প্রকৃতির শোভা দেখিতেছেন। এমন সময় কিছু ভিক্ষু আসিয়া বলিলেন, মৃত আত্মীয় স্বজনকে স্মরণ করে পশু জবাই করিয়া খানাপিনার আয়োজন করা যাবে কি? বুদ্ধ গম্ভীর কন্ঠে বলিলেন, অবশ্যই যাবে না। জীবন নেয়ার মধ্যে ভালো কিছু থাকিতে

by

    চৈত্র মাসের এক প্রচন্ড দুপুরে হঠাৎ করেই পৃথিবীর লোকজন হাটতে ভুলে গেল। মানুষ ভুলে গেল কীভাবে হাটতে হয়। কীভাবে পায়ের পর পা ফেলে হেটে যেতে হয়। তারা এও ভুলে গেল যে একদিন তারা হাটতে জানত। তাদের মস্তিষ্কের যে অংশে হাটাচলা সংক্রান্ত তথ্য রাখা ছিল তা হঠাৎ করেই যেন মুছে গেছে! এই হাটা ভুলে