by

ইমাম সাহেবের প্রচন্ড টেনশন।টেনশন টেনশনে ঘুম আসছে না তার।অনেকদিন পর এই চাকরিটা পেয়েছেন। কথায় আছে,  যার নাই কোন গতি  তার লাগি ইমামতি আসলেই ইমাম সাত্তার সাহেবের কোন গতি ছিল না।এর আগে তিনটি চাকরি হারিয়েছেন।ইমামতি তে চাকরি হারালে কেউ আর নিতে চায় না।খোঁজখবর নিয়ে যখন জানতে পারে আগে এই ইমামকে কোন মসজিদ থেকে বের করে দেয়া

by

   চড়ুই পাখি খুব ছোটবেলায় আমি এবং আমার ভাই যখন ক্লাস থ্রি ফোরে পড়ি তখন আমাদের বাসার ভেন্টিলেটরের ফাঁকে একজোড়া চড়ুই পাখি বাসা বাঁধে। ভেন্টিলেটরের এক ভাঙা অংশ দিয়ে ভিতরে ঢুকে শুকনো খড় পাতা দিয়ে তৈরী করে তাদের বাসস্থান। দাদী বললেন চড়ুই পাখির বাসা সৌভাগ্যের লক্ষণ। সৌভাগ্য জিনিসটা কি তখন ভালমত না বুঝলেও বুঝতাম চড়ুই

by

একসারি পাবলিক টয়লেট।শাখাওয়াত সাহেব দ্রুত এসে একটির দরজা ধরে টান দিলেন। দরজা খুলে গেল।কিন্তু ভিতরে তাকিয়ে দেখেন এক যুবক দাঁড়িয়ে বাথরুম করছে। দরজা খোলায় সে পিছন ফিরে তাকাচ্ছে। শাখাওয়াত সাহেবের বয়স চল্লিশের মত।তিনি সচরাচর পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করেন না। আজ হঠাৎ প্রয়োজন পড়ল। তাই আসা এখানে। দরজাগুলোর ছিটকিনির  এই অবস্থা জানলে তিনি এভাবে টান দিয়ে

by

ভদ্রলোকের নাম মোহাম্মদ তমিজুজ্জামান।ছোটবেলায় বন্ধুরা ডাকত তরমুজ।মা বাবা ডাকতেন তমিজ।ইস্কুলের হেডমাষ্টার সাহেব ডাকতেন তমিজউদ্দিন। তমিজুজ্জামানের তাতে কিছুই যায় আসত না।তাকে কে কি ডাকল না ডাকল সেই দিকে দৃষ্টি দেবার কোন ইচ্ছাই তার কোনদিন হয় নি।তিনি একা থাকেন।একাই ঘুরেন।একাই ফিরেন। ছোটবেলায় সবাই যখন বন্ধুবান্ধব নিয়ে গল্প গুজব করত তমিজুজ্জামান একা একা আঙ্গুলে কী সব গোনাগোনি করতেন।ঠোট

by

পৃথিবীতে অনেক বিস্ময়কর, আশ্চর্যজনক ঘটনা ঘটে।তবে এর চেয়ে কোন আশ্চর্যজনক ঘটনা ঘটতে পারে বলে আমার মনে হয় না।আপনাদের ও মনে হবে না নিশ্চিত।আমি কিছু বাড়িয়ে বলছি না।পুরো ঘটনাটি শুনলে আপনাদের ও আমার মতই মনে হবে। জহীরুদ্দিন মোহাম্মদ চৌধুরী সাহেব নিতান্তই সাদাসিদে ভদ্রলোক।কিছুদিন আগে ছোট সরকারী চাকরী থেকে অবসর নিয়েছেন।সবার সাথেই তার ব্যবহার অমায়িক।বিয়ে করেন নি