লেজ কাটা শেয়াল ও তাহার সমাজ

দ্য ফক্স উইদাউট এ টেইল বা লেজকাটা যাওয়া শেয়ালের গল্প আমরা প্রায় সবাই ছোটবেলা থেকে পড়ে আসছি। এটা একটা দারুণ গুরুত্বপূর্ন গল্প। গল্পের সারাংশ এই, এক বনে ছিল এক ধূর্ত শেয়াল। সে একদিন ফাঁদে পড়ে এবং তার লেজ হারায়। অতঃপর সে নিজ এলাকায় ফিরে আসে। অন্য সব শেয়ালদের বুঝাতে থাকে লেজের কোন প্রয়োজন নেই। লেজ কাটলে সুন্দর দেখায়। এইজন্য সে লেজ কেটে ফেলেছে। সবার লেজ কেটে ফেলা উচিত তার মত। শেয়ালেরা তার কথা শুনছিল। তখন এক বৃদ্ধ শেয়াল বুঝতে পারলেন ধূর্ত শেয়ালের চালাকি। তিনি সবাইকে বললেন, ধূর্ত শেয়াল নিজে ফাঁদে পড়ে লেজ হারিয়েছে। এখন সবাইকে বলছে সবার লেজ কেটে ফেলতে।

গল্পের নীতিশিক্ষাঃ কেউ যখন উপদেশ দেয় তখন সেখানে তার কোন লাভ আছে কী না তা খতিয়ে দেখতে হবে। এটি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয়। এবং অথরিটি বা বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচিতদের ভুল প্রভাব থেকে বাঁচতে এটি অবশ্যই করতে হবে।

গল্পটিকে এবার অন্যভাবে একটু দেখার চেষ্টা করা যাক। গল্পের একটি বাস্তবতা আছে, একটি রূপক আছে। যে নীতিশিক্ষা আমরা গল্প থেকে নিলাম বা যে নীতিশিক্ষা দেবার জন্য গল্পটি আমাদের বলা হলো তা গল্পের রূপক কেন্দ্রিক অবস্থান থেকে। শেয়াল, তার লেজ হারানো ইত্যাদিকে রূপক হিসেবে কল্পনা করে নিয়ে আমরা নীতিশিক্ষা নিলাম।

গল্পের অন্যদিক অর্থাৎ তার বাস্তবতা নিয়ে আমরা ভাবতে পারি। রূপক অংশ এর শিক্ষা থাকুক, দেখা যাক বাস্তবতার অংশ আরো কিছু শেখাতে পারে কি না।

লেজকাটা শেয়াল - ঈশপের গল্প

ছবিঃ লেজকাটা শেয়াল শেয়ালসভায় তার বক্তব্য রাখছেন।

 

 

লেজ কাটা শেয়ালের প্রতি অন্য সব শেয়ালদের এত বিদ্বেষের কারণ কী?

সামগ্রিক শেয়াল সমাজের ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখা যায়, লেজ কাটা শেয়াল তাদের ইতিহাসে এক কুলাঙ্গার বা ফ্যামিলির ব্ল্যাকশিপ হয়ে রয়েছে। যদিও অন্যান্য শেয়ালেরাও কম ধূর্ত নয়। ঈশপের অন্যান্য গল্পে যেসব মহা ধূর্ত শেয়ালদের বর্ননা আছে, এরা লেজযুক্তই।

লেজযুক্ত শেয়ালেরাও ধূর্ত, কিন্তু তারা লেজ কাটা শেয়ালকে ধূর্ত বলে চিহ্নিত করে। লেজকাটা শেয়ালের উপর তাদের ক্ষোভ সে যে ধূর্ত এই জন্য নয়, কারণ তারা সবাই নিজেরা জানে তারা প্রত্যেকেই ধূর্ত। লেজকাটার প্রতি তাদের ক্ষোভের কারণ, লেজ কাটা শেয়াল তাদের সাথে ধূর্তামি তথা চালাকি করতে গেছে। লেজ কাটা শেয়াল নিজেকে অন্য শেয়ালের চেয়ে বেশী ধূর্ত বা চালাক মনে করেছিল। এবং প্রায় বুঝিয়ে ফেলেছিল লেজ অপ্রয়োজনীয়। অনান্য ধূর্ত শেয়ালেরা যখনই এই কথা ভাবে তখনই লেজ কাটার প্রতি তাদের ক্ষোভ বা রাগ উপচে উঠে। তাদের ক্ষোভের কারণ লেজ কাটা কেন নিজেকে তাদের চাইতে বেশী চালাক মনে করল, এইজন্য।

মানব সমাজের দিকে তাকালে আমরা একইরকম চিত্র দেখতে পাই। কোন লোক চালাকি করে ধরা পড়লে তার প্রতি মানুষের তীব্র বিদ্বেষ দেখা যায়। এর কারণ এই নয় যে সে চালাকি ঘৃণা করে। তার এই বিদ্বেষ চালাকির বিরুদ্ধে নয়। ধরা পড়া লোক যে নিজেকে তাদের চাইতে বেশী চালাক মনে করেছিল, এই ভাবনাই তাদের বিদ্বেষের আগুনে ঘি ঢালে, প্রধানত।

একজন দুর্নীতিবাজ রাজনীতিবিদ বা সরকারী আমলা দুর্নীতিতে ধরা পড়লে তার প্রতি মানুষের বিদ্বেষ দুর্নীতির প্রতি বিদ্বেষ নয়। দুর্নীতির প্রতি সমাজের এই বিদ্বেষ সত্যি হলে সমাজে দুর্নীতি থাকত না। ঐ লোকটি দুর্নীতি করতে পারল, সুযোগ পেল, ভেবেছিল কেউ বুঝতে পারবে না – এই ভাবনা থেকেই তাদের ক্ষোভ ঘনীভূত হয়। তাদের সুযোগ না পাওয়া, দুর্নীতি করতে না পারাও এতে সহায়ক হিসেবে কাজ করে। এই সাধারণ মানুষেরা, যারা রাজনীতিবিদের দূর্নীতি, আমলাদের দূর্নীতি নিয়ে কথা বলে, দেখা যায় তারা অক্লান্ত চেষ্টা করে যায় নিজের সন্তানাদিকে সরকারী আমলা বানানোর জন্য।

 

লেজ কাটা শেয়াল যখন তার কাটা লেজকে ফ্যাশন হিসেবে প্রচার করতে ব্যর্থ হলো, তখন সে কীভাবে জীবন যাপন করবে? অন্য শেয়ালগুলো তারে ব্যঙ্গ বিদ্রুপ করবে না এর নিশ্চয়তা আছে কি? তখন সে কি সমাজ থেকে বহিঃস্কৃত হয়ে একা একা দিনাতিপাত করতে বাধ্য হয়েছিল?

রিসার্চে দেখা যায়, টিকটিকি বা হাউজ গ্যাকো লেজ হারালে অন্য হাউজ গ্যাকোরা তাকে নিয়ে হাসাহাসি করে। মানুষেরাও ভিন্ন ধরনের মানুষরে নিয়ে হাসাহাসি করে, রেসিস্ট আক্রমণ করে। মানুষের স্কুলে একটি অন্যরকম যে ছেলেটি, তাকে ক্লাসে নানা ধরনের হেনস্থার শিকার হতে হয়। বৃহত্তর ক্ষেত্রে, এক জাতির মানুষেরা তাদের পাশে বসবাসরত অন্য জাতির লোক, যারা ভিন্ন রকম জীবন যাপন করে, ভিন্ন সংস্কৃতি লালন করে তাদের নির্মূল করে দিতে চায়।

ফলে এটা ধরে নেয়া যায় অন্য শেয়ালরা লেজ কাটা শেয়ালরে নিয়ে হাসাহাসি করবে। এবং এর থেকে বাঁচতেই হয়ত লেজ কাটা শেয়াল তার লেজ কাটা অবস্থাকে ফ্যাশন হিসেবে প্রকাশ করতে চেয়েছিল। এইদিক থেকে দেখতে গেলে লেজ কাটা শেয়ালের চেষ্টাটাকে নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টা, নিজের সামাজিক অবস্থান ধরে রাখার চেষ্টা বলে ধরে নেয়া যায়। তবে তার এই চেষ্টা অবশ্যই এথিক্যাল কোন কাজ ছিল না।

একটা কথা আছে, জীবনে হতাশ হবার কিছু নেই। খারাপ অবস্থায় পড়লেও সেখান থেকে কীভাবে সুফল আহরন করা যায় তা দেখতে হবে। মাইনাসকে প্লাসে পরিণত করতে হবে। লেজকাটা শেয়াল এরকম সেলফ ইম্প্রুভমেন্টের বই পড়েছিল কি না বলা যায় না। কিন্তু সে এই ধরনের কাজই করেছে, যদিও নন এথিক্যাল বা অনৈতিক ভাবে।

 

লেজ কাটা শেয়াল তার লেজ কাটা অবস্থাকে ফ্যাশন হিসেবে প্রকাশ করতে ব্যর্থ হলো কেন? কীভাবে সে সফল হতে পারত? সে সফল হলে কি সব শেয়াল তাদের লেজ কেটে ফেলত?

লেজ কাটা শেয়াল হুট করে শেয়ালসভা করে তার মত প্রচার করেছে। তার নির্দিষ্ট কোন পরিকল্পনা ছিল না। অন্য শেয়ালদের প্রভাবিত করার জন্য সে নিজের উপর অতিরিক্ত বিশ্বাস করেছে। তার এই অভার কনফিডেন্স বা অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস প্রথমত তাঁকে ডুবিয়েছে।

সে যদি ঠান্ডা মাথা পরিকল্পনা করে শুরু করত, কীভাবে কাজ করলে শেয়ালদের প্রভাবিত করা যাবে তার ছক কষে নিয়ে কাজে নামত, তাহলে তার সফল হবার সম্ভাবনা বেড়ে যেত।

সে সফল হলে সব শেয়াল তাদের লেজ কেটে ফেলত এমন বলা যায় না। এই ধরনের ধারণা, যা সমাজের প্রচলিত ধারনার বিপরীত তা সহজে জনপ্রিয় হয় না। লেজ কাটা ভালোভাবে বুঝাতে সম্ভব হলেও অল্প সংখ্যক শেয়াল তাদের লেজ কাটতে সম্মত হত।

 

আসলে সত্যি কি লেজকাটা শেয়াল পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছিল? নাকী অল্প শেয়ালেরা এটাকে ফ্যাশন হিসেবে গ্রহণ করেছিল? 

লেজকাটা শেয়াল এর কথায় প্রভাবিত হয়ে অল্প সংখ্যক শেয়াল তাদের লেজ হয়ত কেটে ফেলেছিল। এমন হওয়া অস্বাভাবিক না। মানুষের সমাজে দেখা যায়, বিভিন্ন কাল্টও তাদের দলে লোক ভিড়াতে সক্ষম হয়। নতুন কোন চিন্তা বেশিরভাগ লোক গ্রহণ না করলেও অল্প কিছু লোক গ্রহণ করতে পারে। এইভাবেই সামাজিক পরিবর্তনের ক্ষেত্র তৈরী হয়।

শেয়ালদের মধ্যেও কিছু শেয়াল এমন থাকা অস্বাভাবিক না।

তাছাড়া জন্মগত ভাবে লেজহীন শেয়ালেরা এটাকে গ্রহণ করতে পারে। তাদের তো এটাকে ফ্যাশন হিসেবে গ্রহণ করতে বাঁধা নেই। অথবা আরো শেয়ালেরা যারা ঐ ধরনের ফাঁদে পড়ে লেজ হারিয়েছিল তারাও এটাকে ফ্যাশন হিসেবে নিতে পারে। শেয়াল ইতিহাসে একমাত্র লেজকাটা শেয়ালই ফাঁদে পড়ে লেজ হা্রিয়েছে, এমন না নিশ্চয়ই। আরো আরো শেয়ালেরা লেজ হারিয়েছে। তারা কোথায়?

তারা কি লেজযুক্ত শেয়াল সমাজ দ্বারা বিতারিত হয়ে দূরে আলাদা লেজহীন শেয়াল সমাজ প্রতিষ্ঠা করেছিল? সেই সমাজ প্রতিষ্ঠিত হলে, তাতে লেজ কাটা একটা ফ্যাশনই হবার কথা। তখনকার অবস্থা বিবেচনায় লেজ কাটা শেয়ালের প্রচেষ্টাকে কীভাবে ব্যর্থ বলা যায়?

 

লেজ কাটা শেয়ালদের ইতিহাস কোথায়? তা কি ক্ষমতাবান লেজযুক্ত শেয়ালেরা সামগ্রিক শেয়ালজাতির ভাবমূর্তি রক্ষার খাতিরে মুছে দিয়েছেন?

খুব সম্ভবত, লেজকাটা শেয়ালেরা লেজযুক্ত শেয়ালদের সমাজ ছেড়ে দূরে চলে যায়। তারা বনের অন্যপাশে লেজহীন শেয়ালদের সমাজ তৈরী করে। সে সমাজে লেজকাটা একটা ফ্যাশন ছিল। লেজযুক্ত শেয়ালেরা এই লেজকাটা শেয়ালের সমাজকে ভালো ভাবে দেখেন নাই। তারা আক্রমণ করেছেন এদের। বিভিন্ন ভাবে নির্মূল করার চেষ্টা চালিয়েছেন। আর শেয়ালের লেজ তার শারীরিক তাপমাত্রা ভারসাম্য, পাহাড়ে উঠার  বা নামার সময় ভারসাম্য ইত্যাদি ক্ষেত্রে সাহায্য করে। বিবর্তনের ফলে উদ্ভূত এই লেজের ভূমিকা আছে শেয়ালের জঙ্গলে বেঁচে থাকার ক্ষেত্রে। ফলে লেজকাটা শেয়ালের টিকে থাকা কঠিন হয়ে উঠেছিল। প্রাকৃতিক কারণের সাথে সাথে ছিল শক্তিশালী লেজযুক্ত শেয়ালদের আক্রমণ। ফলে তাদের টিকে থাকা সম্ভব হয় নি।

অল্পদিনেই লেজ কাটা শেয়ালদের সমাজ ধ্বংশ হয়। লেজযুক্ত শেয়ালেরা শেয়াল সমাজের সামগ্রিক ইতিহাস থেকে এদের মুছে দেন। শুধুমাত্র একটি গল্পাকারে তা রেখে দেন, বাচ্চাদের নীতিশিক্ষা শেখানোর জন্য। লেজযুক্ত শেয়াল সমাজই এই গল্পের লেখক। এখানে তাই লেজকাটা শেয়ালকে একটি ধূর্ত, ব্যর্থ ও হাস্যকর শেয়ালরূপে চিত্রিত করা হয়েছে।

Share
আপনার মূল্যবান সময় ব্যয় করে লেখাটি পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ। লেখার স্বত্ত্ব লেখক কতৃক সংরক্ষিত, কপি করবেন না। লিংক শেয়ার করুন, তাতে অন্যরা পড়ার সুযোগ পাবেন।

Related Posts

Comments are closed.